সৌমনা দাশগুপ্ত

 



দুটি কবিতা


 ১

ক্যানভাস

 

পৃথিবীর ঠোঁট থেকে ওড়ে ক্যাকটাস

পুঁজ খসে, ভেঙে পড়ে নিথর বসত

 

অর্গলহীন রাত্রিযাপন

 

চপারখেলার শেষে উড়ছে করোটি

মাটি জল সব যেন নাচনী পিঙ্গলা

 

আকরের লোহারঙে ডুবে আছে ক্যানভাস

 

পত্রমোচনের দিকে ছুটে যায় সাপ

খোলসে খোলসে তার ব্যথা লেখা আছে

 

বিমূর্ত অক্ষর যত মাটিখসা লেগে আছে আকাশের গায়ে 



জল-তলোয়ার 

 

গলানো কাচের ক্ষুর ঢেলে একদিন সব মেঘ চলে যায়

 

আধেক ফসিল আর বাকি অর্ধেক দেহ পলল শিলার

শামুকের ঝিনুকের সমুদ্রকাঁকড়ার পথে হৃদয় হেঁটেছে

 

পাথরমাছের বমি, স্থির বিষ, ঝলসে উঠছে কঙ্কালে 

 

আমিষ লোকগল্পের থেকে দৌড়ে আসছে একটি ঘোড়া

সওয়ার বসেছে পিঠে, মিশ্রমাধ্যমের ছবি, হাতে তার স্নায়ুর ককটেল

 

আগুনের জাগলারি আমিও খেলেছি, খুলে ধরি জল-তলোয়ার 

৩টি মন্তব্য:

  1. ''চপারখেলার শেষে উড়ছে করোটি

    মাটি জল সব যেন নাচনী পিঙ্গলা''--- সীমানা ডিঙানো কল্পনাও যেন হয়ে ওঠে সৌমনার হাতের তাস; যাকে সে চাওয়ামাত্র করে তুলতে পারে 'নাচনী পিঙ্গলা'। চিয়ার্স চিয়ার্স !!

    উত্তরমুছুন
  2. Jewel Mazhar
    ''চপারখেলার শেষে উড়ছে করোটি
    মাটি জল সব যেন নাচনী পিঙ্গলা''--- সীমানা ডিঙানো কল্পনাও যেন হয়ে ওঠে সৌমনার হাতের তাস; যাকে সে চাওয়ামাত্র করে তুলতে পারে 'নাচনী পিঙ্গলা'। চিয়ার্স চিয়ার্স !!

    উত্তরমুছুন