কৌশিক সেন

 


   গুচ্ছ কবিতা



পাড়ার ছোট্ট পার্ক

 

 

পাপড়িচাট লেগে আছে

ঠোঁটের দু’দিকে

 

কারও কি আসবার কথা ছিল

পার্কের পশ্চিমে!

 

দেখতে দেখতে পাপড়িচাট

অরণ্য

       জনপদ

       জাহাজঘাটা

              ধূধূ মরুভূমি...

ছিঁড়ে যায় দোলনাটি,

রক্তাক্ত হয়ে আসে, পার্কের পশ্চিমদিক

 

অন্ধকার ঘনায়, একা একা!

 

 

 

চিঠি লিখতে হলে...

 

 

চিঠি লিখতে হলে এক টুকরো কাগজ লাগে,

একটি কলম।

তারপর,

লিখতে

     লিখতে

          লিখতে

যখন নদী মেশে হাঁমুখ মোহনায়,

তখন বুঝি

ওখানে কোনো কাগজ-কলম ছিলনা।

এক মন্বন্তর খিদে আর

এস্রাজ ভরা সুর না থাকলে

চিঠি লেখাই যায়না!

 


 

হুলো

 

ইচ্ছেমতির পাড়ে বসে আছে স্যামুয়েল

 

রত্নাকে বোলো যেন দোর দিয়ে রাখে

রত্নাকে বোলো যেন দুধ ঢেকে রাখে

রত্নাকে বোলো যেন আলো ছুঁয়ে রাখে

 

যুদ্ধ শেষ হলে ফিরে আসে কেউ কেউ

টোকা দেয় দরজায়, মুখ দেয় ফুটন্ত দুধে

তারপর আলো নিভিয়ে দেয়...

 

অন্ধকারে ডুবে যায় হাড়কাটা গলিটা!

 


শুকনো পাতা ঝরার বেলায়...

 

 

নৈসর্গিক কিছু না ভাবলে নির্বাণলাভ হয়না।

এই যেমন ধরো, কাচের চুড়ি ভেঙে গেলে

ক্যালাইডোস্কোপ, রাস্তায় খই ছিটানো দেখলেই

বুঝতে হবে, কেউ একজন এই পথ ধরেই মিশে গেছে

পর্ণমোচী অরণ্যের গভীরে।  পাতাকুড়ানির চোখে

পেনসিল স্কেচ এঁকে যে নেকড়েটি হারিয়ে গিয়েছিল

ঝরাপাতার পার্বণে, তাকে খুঁজে পেয়েছিল শহরের

চিড়িয়াখানাওয়ালারা।  জাফরানি আঁচলে শুকনো পাতা

তুলে নিয়ে গেছে দূর গাঁয়ের পাগলিনী। আকাশের বুকে

ভাতের মাড় গালবে সন্ধের পর।  পর্ণমোচী অরণ্যে

তখন জাতকজন্মের মন্দ্রগান!

 

 



1 টি মন্তব্য:

  1. রাস্তায় খই ছড়ানো দেখলেই বুঝতে হবে কেউ হয়তো পর্ণমোচী অরণ্য অন্ধকারে হারিয়ে গেছে অথবা ভাঙ্গা কাঁচের চুড়ি একটি অনন্য মন্ত্র কথা শুনিয়ে যায় গভীর অরণ্যের রোমাঞ্চ পূর্ণতা দিয়ে । খুব ভালো কবিতা গুচ্ছ পড়লাম দাদা 🙏🏻🙏🏻🙏🏻

    উত্তরমুছুন