অরণ্যা সরকার

 


দুটি কবিতা

গুনগুন অন্ধকার



 

 প্রেম ফুরোতে ফুরোতে সুগন্ধি কলরব। শূন্য আগলে  সুবেশ মলাট।

‘সু’ জমছে।

অক্ষরে টোকা দিয়ে  পেড়ে নিচ্ছে  ধানগন্ধ উপশম।

স্বমেহন  গেঁজিয়ে বিনির্মাণ।  চিনে  নিতে হয় আত্মধ্বস, মচকানো ক্রিয়াপদ

এমনকি স্বেচ্ছাচার।

স্বপ্নে প্রকট ফুলপচা  বাজার , ফুসমন্তর অছিলার ।  মধ্যবয়স জানে

 কি  সমর্পণ ফেরার অপেক্ষায় !   

‘ধী’  জমছে।

ধৈর্য বাজাই।  স্বভাবনা স্বর দিলে আনন্দভৈরবী  

বেসুরো পাহারার ড্রয়ারে ছন্দের ভাঙাপর্ব। পাউচ সুড়ঙ্গে নিপুন হাততালি ।  

 


পেরোনোর  কথা থেকে


 

 

পাথর  পাড়ায় যে গতি আগলে রাখে

ফুরিয়ে যাওয়া রাস্তার সিদ্ধান্তে

পরিগল্প রেখে যায় যে তাগিদ

স্বরবর্ণ মেঘ তারা

জেনেছি 

সবুজ হারাতে হারাতে পাতারা প্রাজ্ঞ হল

তছনছ গুটিয়ে নিল কত নদীমুখী কথা

পাখি বলে ডেকেছি তাদের

বৃষ্টির টুকরো  চিবোতে চিবোতে

মরুখোপে ওষধি প্রশ্রয়

পুষ্টি হে, হে জ্যোৎস্নাপন্থা

তুমিই জানালে

যেকোন নির্ণয় আসলে কৃতজ্ঞ ভূমিকা  

 

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন