তুষারকান্তি রায়

 


দুটি কবিতা


১)

মায়া


চাঁদ সহ ভেসে যাচ্ছে জল ; আর 

সাঁতারে ডুবের ছন্দ ; জলের আওয়াজ ! 

খলবল ঢেউ,

অতল ছুঁয়ে থাকা কথার সম্বিত... 

ভেসে যাচ্ছে ত্রিবেণীর জামতলা,

খুঁজে না পাওয়া গানের গন্ধ , 

শ‍্যামচাঁদ লেন এর সুধাময় আলো নিয়ে

                          নীল ও নিলাম !

 তামার মুদ্রার ভঙ্গিতে দাঁড়িয়ে থাকা স্বপ্নের

                            এখন মুঠোভর্তি

ছুটি... 

দ‍্যাখো, আমাদের খড়কুটো চাঁদ ওঠা আলো ; 

পাশে বোসো, এসো, শ্বাস নাও

নবমীর জানালায় প্রকাশ‍্য পয়গম নিয়ে কথা হোক। 

খোশহাল খবরের কথা শোনো -

আয়নায় মুখ রাখো চোখ থেকে মুছে ফেলো বিষণ্ণ বিয়োগের দাগ, 

লেখো শঙ্খবেলা, কবিতায় 

                জলের ঝিনুক !



২) 

মায়াবী 


খিলখিল করছে আমার মেগালোমেনিয়া ;

শব্দকে ঢেকে দেওয়া শব্দের ফ্লাডলাইট... 

বামনের চাঁদ ছোঁয়ার ডাকটিকিট! 

ফাদার জাভেন বলছিলেন, আজকাল 

ফানুসের পোষ্টারে প্রশ্ন ঢুকে পড়ছে 

                   প্রশ্নের গভীরে , আর 

হাওয়ার উপকথায় হারিয়ে যাচ্ছে প্রত্নতাত্ত্বিক মডিউলাস। 

যেমন জবর জ‍্যোৎস্নায় আয়নার পাঁজর খুলে 

সমুদ্রপাখি নেমে আসে ; ভোরের তারায়

বেজে ওঠে অক্ষয় আহির ভৈরব ,

বোষ্টমীর নাকের পল্লবে ফুটে ওঠে ঘামফুল - হ‍্যালুসিনেশন!

কালপুরুষের কপালের তারাটি 

আসলে ভালোবাসার মিথ ... 

মায়াবী কিংখাব !