জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়





সবাক    

একফালি কুশটাঁড় গাঁথা আলোচনা ঘর
টেবিলের কালো জুড়ে নগ্ন ভেনাস
চিতার ভয়াল দাঁতে শিথিল ময়াল ঘুম
টাঁড়ের পাথর জানে ঝাড়খণ্ডি মাদলে
কত বোল খেলে মায়ারাত জ্যোৎস্নায় 
তামাটে দেহের চাঁদে  গ্রিক ভাস্কর্য গন্ধ
অর্ফিয়ুস বাঁশি আর ধানখেতে যত গান

সন্ধ্যার ত্রিকূট ডাকে আয় ছায়াজল সবুজ
ক্লান্ত শরীর জানে দড়িপথ  হনন বিন্দু থেকে
চেয়ে দেখা সুখ এখানে বন্ধু শুধু মৃত্যু উড়ান
দুধাপ নীচু ডালে যার মানুষের মতো দোলে
বিবর্তন-তামাশা আর কাঙ্ক্ষিত রোদ বেশ দূর
পলাতক ছায়া রাখে দীর্ঘ পথ বিকেলের রং

তুমি সেই ছায়া ধরে এসো হেমন্ত সাজানো
পাহাড়ের কানে কিছু পদাবলি থাক
দৈনন্দিন শোক তাপ ঘুমাক নিরিবিল
হিমগন্ধ হেমন্তের বুকে মধুকাল রাখি।