স্বরূপ মুখার্জ্জী

 


দুটি কবিতা


এবং একটি বোধিবৃক্ষের জন্ম



বোধিবৃক্ষের নীচে অন্ধকার

তার মাঝে এক লাইনের মুক্তগদ্য

আমি আজ নিজেকে

বিনা রক্তপাতে আহত করেছি

 

নৈসর্গিক মৃত্যু বড্ড আদরের

ঝপ করে অন্ধকারের মতো নেমে আসে

 

চোরা গলির ধ্বংসস্তুপ থেকে

উঠে আসা হরিণ শাবককে

                       ভয় পায়

                                 নিষ্ঠুর ঈশ্বর

 

এখন আমি এক বিক্রিত ক্রীতদাস

 


একটি সওদাগরী কথা



একটা পৈশাচিক হাওয়া

যখন প্রেম কে চাক্ষুষ করে

দেওয়ালে লেগে থাকা ঝুলেরা তখন

বিপ্লব শুরু করে

 

 

শ্মশানের কায়া ছায়া হয়ে দেখা দিলে

অসময়ে বসন্ত জাগে বুকের মাঝে

বৃষ্টির প্রগলভতা দূরে সরে যায়

 

 

ঠিক তখনই বোঝা যায়

প্রেমিকার বুকের ভিতরও

অস্থি-মজ্জা আছে

এক নির্দয় চামড়া তাকে আবৃত করে রাখে

 

অসংলগ্ন পান্ডুলিপি হারিয়ে যায়

প্রেমিকার প্রেমের গভীরে