বিজয় সিংহ

 


গুচ্ছ কবিতা


ছুরি

 

 ছুরির ফলায় ছিল  মিনেকরা বাঘ

 সে সবের আগে তুমি

                  ক্ষতের সেলাই ছিঁড়ে দাও

 এগারো বছর ধরে নিজেই নিজের রক্ত

                        গলায় ঢেলেছি

 এগারো বছর আগে বিদ্যুতের হাতে হাত

          তুলনামূলক ক্লাসে ছিল

 

 বাদামি রঙের নেশা ছড়িয়ে রয়েছে

                             রাত্রি ব্রুয়ারিঘটিত

 চারিদিকে কুকুরের ঘেউ

                       চেরিব্লসমের কত রাত

 খাদিনার মোড় ঠিক কোথায় জানিনা

 খাদিনার মোড়ে তুমি দেখেছিলে কুসুম্ভ কুসুম

 

 

 ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রক্ত হাওয়ারাও

                  মুখে ঠোঁটে সোহাগ রেখেছে

 সেসব  তাঁহার মায়া   যাবতীয় ক্ষত মুখে তিনি

 অশ্বগন্ধামূল কতটা রাখেন ছুরি জানে

 আরও জানে লহুবীজ ফেটে তুলো

                          অমর্ত্যলোকেই ফিরে যায়

 

 

 

 কাল

 

 

 দু'হাজার বারো যত জানে

                  দু'হাজার কুড়ি যত জানে

 লাট্টুমার আমি নিঃস্ব ছড়িয়েছি চাঁদের ওপার

 

 বিপথগামিনী হয়ে সান্যালের অতিরিক্ত হয়ে

     পেরিয়েছ কার্পাশের  বন   পড়েছে পায়েল 

                                                  নীচু রাতে

 গ্রন্থমধ্যে তর্কাতীত ফিরেছে অক্ষর

  অক্ষরের গর্ভদেশে সন্ত্রাসী নিউট্রন

                                        গোপনে রেখেছি

 

তবস্সুম, কালবেলা ক্রমশ ও ক্রমে..

 বোধিদ্রুম, পেট্রোল গন্ধেরা ক্রমাগত..

 নৈঃশব্দের যত আমি পুড়ে গেছি দলিত টিলায়

 

 

 

 স্পর্শদোষের তিন স্তবক

 

 

 

হয়তো গণিতের স্পর্শ ছিল মহা কালপ্রিট

হয়তো মৃত স্ক্রিপ্ট পড়ে তুমি সিনানে ফিরেছো

হয়তো স্তবকবিন্যাস ছিল মিশ্রবৃত্তঘেঁষা

 

যে আমাকে অভাবিত থ্রিলারের দেশে নিয়ে

                                                       যায়

যে আমাকে ওষুধের গন্ধে বেঁধে রাখে

যে আমাকে আক্রোশ বসত নেয় সুগমসংগীতে                    

 

যেহেতু এ কালসিন্ধুতীরে ফোটে দুখিনী    গোলাপ  

যেহেতু নীলগঞ্জের দিকে আসন্ন আষাঢ় মরে

                                            যায়

যেহেতু অলক্ষ্যে ছুটি নিয়েছিল                            দারুচিনিদ্বীপের পাখিরা

 

 

 

 

 

 

 অসুখ

 

 সব চরিত্রই কাল্পনিক ছিলনা, পেট্রোল

 ভেজা চাঁদ পোড়ার আগেই

 কিউবিক গোধূলি  মোহে আচ্ছন্ন করেছে

 

 জানালায় যে আমাকে ডেকেছিল তার

 ঠোঁট ছিল পিত্তলের, হাতে

 মুরগীর কাটাঝুঁটি, এইভাবে ছায়া হয়ে থাকা

 

 কুচযুগসুশোভিত যিনি তিনি সরস্বতী নন

 হিম গর্ভের জাতিকা ও যেভাবে

 শ্রীজীবনানন্দ থেকে জেনেছি অসুখ

--------------------------------------

ছবি ঋণ: গুগল


৪টি মন্তব্য: