সোনালী ঘোষ

 


দুটি কবিতা



প্রাণপাখি মোর উইড়‍্যা যায়.....


 

শ্রী

 

এ শরীর ভাঙো। ভাবো শূন‍্যতা ছাড়া নিভৃতে পুড়িয়েছো কাকে। যাকে লিখেছ ভেবে মুছে চলেছো ,আদৌ কতটুকু ছিল সে।এত রন্ধ্র পথ,শুধু বেনো জল ঢোকে।ডুবে মরি।শস‍্য সাধনা বৃথাই, আমায় চৈতন‍্য দাও হে হরি।না পারো নিয়ে চলো বহুদূর বিন্দুর গর্ভে। যেখানে তীব্র রূপ আর পুঞ্জ পুঞ্জ আলো....তুমি নির্বেদ, এসো চরণ ধুয়ে দেই।

 

শীত

 

শীত খুব বেশি দূরে নেই, ছাদ বাগানে বসে আছে ছোটো কমলালেবুর চারা, মরসুমী ফুলের ছোটো গাছ।রোজ জল দিলে আনন্দে খিলখিল করে,এর মধ‍্যেই কাশ্মীরি শালওয়ালা ক্রিংক্রিং শব্দে বাড়ির গলি পথে,ওরা এলেই শহরে পশমের গন্ধ,আখরোটের গন্ধে ম ম করে ওঠে।এখন মন চায় খোলা জিপে চেপে, হলদে পাতাওয়ালা জঙ্গলে ছুটে যেতে...দূরে কারা হাঁসের মাংসকারী রাঁধছে। একটু দামি মদ পেলে ই উৎসবের উপত‍্যকা...মনখারাপ বরাবরই অশরীরি কখন যে দোলনায় বসে এক নাগাড়ে দোলে...এত পাখি উড়ে উড়ে কোথায় যায়...এ ভ্রমণবিলাস মন ভারি অস্থির .....


 

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন