মৌসুমী রায়

 


হারজিত



-ও সহদেবদা,দরজা খোলো,থানা থেকে বড়বাবু এসেছেন।

ফটিকের জোরালো ধাক্কায় পলকা দরজাটা ভেঙে পড়বার উপক্রম।

বিভুকে আরো শক্ত করে চেপে ধরে সহদেব।দরজা খুললেই বিপদ।

ঝনাৎ করে শব্দ !একটা চৌকো আলো লম্বা হয়ে অন্ধকার বারান্দাতে ঢুকে পড়ল।

-সহদেব দা, এই অবেলায় ঘুমোলে নাকি মাইরি!

বিভু কাঁদতে কাঁদতে ঘুমিয়ে পড়েছে।সহদেব কোল থেকে বিভুকে নামিয়ে উপরের দিকে চাইলো!

-তুমি সহদেব পাল? সাহেবগঞ্জ জুটমিলে কাজ করতে আগে?  বাজখাঁই গলা বড়বাবুর।

সহদেব ঘাড় নাড়ল।বুকের ভিতর দুমদুম করে হাতুড়ি পিটছে।

-তোমার বৌএর নাম ললিতা পাল?

মাথা নাড়ল সহদেব।জিভটা কেমন শুকিয়ে আসছে।

-কখন থেকে নিখোঁজ?

-ক্ক কাল রাত্তির থেকে।

-থানায় জানাও নি কেন?

-ভেবেছিলাম বাপের বাড়ি গেছে।চলে আসবে।

-অকম্মার ঢেঁকি!শোনো একটা লাশ রেললাইনের ধারে পাওয়া গেছে।সবাই বলছে তোমার বৌ।থানায় চলো।

সহদেব উঠে দাঁড়াল।তারা তিনজনেই গিয়েছিল।

সাড়ে বারোটার লাষ্ট লোকালটায়...

পারেনি সহদেব। শেষমুহূর্তে ট্রেনের সামনে থেকে বিভুকে নিয়ে উল্টো দিকে ঝাঁপ দিয়েছিল...


--------------------------------------

ছবি ঋণ: গুগল


 

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন