রুদ্র কিংশুক

অনুবাদ কবিতায় রুদ্র কিংশুক 

 

  ক্লেওমেনিস পাপাইওপানু (Kleomenis Papaioannou,1990) গ্রিসের সাম্প্রতিক কবিদের প্রতিনিধি। সারা পৃথিবীতে ছন্দ-অলঙ্কার- প্রতীক বর্জনের মধ্য দিয়ে কবিতার যে নতুন হয়ে ওঠা তার অভিঘাত একালের গ্রিক কবিতারতেও পরিলক্ষিত। পাপাইওয়ানুরকবিতাও সেই নিরীক্ষাপ্রবনতার চিহ্ন বহন করে। পাপাইওয়ানু পড়াশোনা করেছেন পেন্টিওন ইউনিভার্সিটিতে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক এবং ইতিহাস বিষয়ে। তাঁর প্রথম কবিতা গ্রন্থের নাম 'লেটার অন এ ফুলিশ হার্ট '।




কবিতা ১

 

শব্দগুলো পেরেকের মতো

পৃষ্ঠার উপর ভাবনাদের ক্রুশবিদ্ধ করে

আর তুমি

খাও

খাও

খাও না জন্মানো ভালোবাসার শরীর

আমি জানিনা...

তোমরা কি কষ্ট পাও ?

কষ্ট কি তোমাকে পুষ্টি যোগায়?

 

কবিতা ২

 

দেবতা নেই ।

দত্যিদানব নেই ।

বস্তু নেই ।

সত্য নেই ।

মিথ্যা নেই

অস্বীকার নেই।

স্বীকার নেই,

কোনো নিরপেক্ষ অবস্থান নেই ।

ভালোবাসা বেড়ে ওঠে না নির্বীজ ত্বকের ওপর।

দূর থেকে আমরা চর্চা করি সামাজিকতা।

পর্দার উপর শিক্ষিত করি আমাদের আবেগ। সমস্তই

পবিত্রতানাশক,

আর অন্য কিছু তুচ্ছ।

আমাদের ফোনের অ্যাপস ছাড়া

আর ল্যাপটপের এন্টিভাইরাস আপডেট ছাড়া

আর আমরা চুম্বন করিনা,

আমরা পরস্পরকে জড়িয়ে ধরি না,

আমরা স্পর্শ করি না ।

আমরা নিরাপদ ।

তাছাড়া সবকিছু ভালো ।

আমরা ভালোই আছি গত বছর ধরেই আমরা/ শিখেছি

না বেঁচে টিকে থাকা।

 

কবিতা ৩

 

বিস্মৃত মেঝের

ওপর একটা কাগজ

সেখানে আমি পেয়েছি

এক টুকরো আমি-কে ।

 

 

বিবেক

জলের ভেতরে

প্রত্যাখ্যানের প্রতিবিম্ব

 

২.

প্রত্যাখ্যানের দ্বারা

প্রত্যাখ্যানের স্বীকৃতি