প্রদীপ চক্রবর্তী


 

 চাঁদনি 

 


বাগান  বেগানে , গানে আঁকছে ওয়াটার লিলি 

আঁকছে সাবলীল ছায়া নড়া' র শব্দ 

ছায়াটি সবখানে ছড়িয়ে রয়েছে 

 

 

মীনা ফুঁ দিলে সরে না , 

আমিনারঞ্জনের আঁচে রান্না হচ্ছি |

পরম হলুদ ডালিমে ভরে আছে আগুন ,

ঝিঙ্গর ডাকছে দূর বাংলাদেশে 

 

 

 গুণাগুণের আঁচে ক্রমাগত সুসিদ্ধ কায়া 

ছায়া ওকেই পোড়াবে , গূঢ়তম মনের লাশ লোধ্র 

দম্ভ দাপট দৃঢ় জলৌকার মতো লিঙ্গ , 

পোড়াবে , রক্ত ছেনে বের করে নিয়ে আসা 

বিশ্বরূপ | যে কোনও নরকে থাকি 

খুশিতে , ডোম্বীর মতো 

 

 

ছায়ায় ছড়ানো বর্ষাবাসে হাহাময় , দেউলে প্রেরিতা 

কোজা নদীর অলক তিলক রক্তে , প্রসাধনীর খেয়ালি গো 

সঙ্গমে থেমো না | পাঁড় - মে তাল | ফুল বওয়া গন্ধ | 

 

ব্লুরবিন মণিহীন বিজুরি ফুটছে পূর্বসখায় 

 

 

যত ফুল নিঃশ্বাসের মধ্যে দিয়ে শরীরে নিয়েছিলাম , মন  ফেলনায় 

 

সে কী তবে তরুপিয়া ?

 

 মানচিত্রহীন মনদেশের 

কালো পচা জলাশয়ে কত আগেকার 

পাতা - ডাল নির্জ্ঞান বুদ্বুদের মতো উঠে আসছে,

 

মন রে মুন , নিংড়ে পাঠাই ...

 

 

দুই .

 

কুহকে  কহতা ভাঙা রাধা 

ধারাপাতের কণাদ কণিকা ওরা 

কাকভেজা নদীও ভেঙে পড়বে 

ভরা বর্ষায় , আঁঁতযন্ত্রের  সুরে 

 

 

নাভিমূল স্বল্প , সূক্ষ্ম , পাতলা ও হাল্কা রোমের রন্ধনপাত্র |

কেঁপে ওঠে গর্ভবাসে রাত্রিজল | আহারান্তিক আচ্ছন্ন বাঁশিবাবু ,

প্রধান জীবিকা : সম্মোহনচর্চা 

 

 

শশীপুরী ছেড়ে যাচ্ছে গন্তব্যহীন পৃথিবী  

 

স্বপ্নের  শিশিতে বাসা বেঁধেছে ভ্রমর ,

 

জল বেঁচে ওঠে নৌকোবোধে 

 

 

আমাদের মধ্যে একজন বাঁশিদের সুর দেখতে পেয়েছিলো , 

 

নৌকোর মৈথুনঋতু 

 

বহুদিন পর শাওনপারাবারে পিছু নিয়েছে 

 

কাগজের নৌকো ও কিছু হিড়িকবাজ শিশু ...

 


৫টি মন্তব্য: