কাকলি মান্না


দুটি কবিতা

যতি চিহ্নের দিকে


নিস্তব্ধতায় বারে বারে বেজে ওঠে বিচ্ছেদের  ঘুঙুর

চাঁদ জ্বেলেছে জ্যোৎস্না কুমারী মেয়ের লাজে

নিভে যাওয়া  বিকেলে অপেক্ষার  রিং টোন হয়ে

নাড়িয়ে  দেয় গোপন রোমকুপ

দু এক স্তবক কবিতা চাঁদ নদীর আলেখ্য

প্রতি রাতে  খুন করেছি মায়াবী আদর

তবুও এখোনো কেন ব্যক্তিগত সাইন বোর্ডে ফুটে  ওঠে  চেনা ডাকনাম


শুশ্রূষার টানেল পেরিয়ে যায় সব সন্ন্যাস যাপন


যতি চিহ্নের দিকে...




কোলাহল


ফুরিয়ে গেছে বললেই কোলাহল ডুবে যায়  নির্জনতার চাদরে

মূক শব্দের গভীর ছুঁয়ে সম্ভাব্য অনুমান

কোন প্রতীকী ভাষা খুঁজে পাচ্ছি না

হারানো সময়ের  রসায়ন অন্তর্লীন

বার বার তুমি নক্ষত্র দূরত্বে

আবছা হচ্ছে কুয়াশা ভোর

পাখির ঠোঁট আর হারানো শস্য দানা

শিখে নেয় কৌশল


কী  আশ্চর্য সব সকাল রোদ্দুর হতে চায়




কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন