সঞ্জয় আচার্য

 

দুটি কবিতা


চকজন্ম


 

বোটানি ক্লাস আমার বড় ভালো লাগে, ম্যাম

 

বুকের ওপর আছড়ে  পড়ে নদী

আলগা হয়ে যায় বাঁধ

জলকল্লোলে ভেসে যায় ঠিকানা

একটা প্রলয়োল্লাস পেরিয়ে আরও একটা যেন।

 

কাঁচা হলুদ রঙা তর্জনী, মধ্যমা আর

বৃদ্ধাঙ্গুলের মাঝে একখন্ড সাদা চক 

আর আপনি লিখে চলেছেন মেদুর বাতাস।

 

আচ্ছা, আপনি কি বোঝেন না

বহমান স্রোতের ওপরে তখন আমি কেবলই

আমি কেবলই হালকা হয়ে যাচ্ছি আকাঙ্ক্ষায়?

 

যদি ডাস্টার পায়, চক পায় 

সদ্য পাশ করা মধ্যমা আর তর্জনীময় একখন্ড আয়ু

তবে দ্বিতীয় বর্ষের এই ছাত্রও কেন বদলে নেবে না শরীর

ক্ষয়ে ক্ষয়ে মিশে যাবে না আঙুলে আঙুলে?

 

বোটানি ক্লাস আমার বড় ভালো লাগে,ম্যাম.....

 

 

  

 

রাজদ্রোহী


 

দেখো আরও একটা দিন

পশ্চিমের স্বর্ণতেজ ঢলে পড়ছে ঋকপথে

এবার আকাশ নিমগ্ন সন্ধে ঢেলে দেবে

চরাচরে ।

 

অনেকটা সময় হলো তোমার জানলা আজও বন্ধ, 

জানলার ধারে একটা চন্দ্রমল্লিকা দুলছে

কেউ তার মঙ্গল আলোয় শ্লোক লিখছে দূরে

সাদা মেঘের পাতায়।

 

এমন একটা ভ্রমণ কাহিনি পড়িনি কতদিন

পাহাড়তলিতে তোমাকে দাঁড় করিয়ে

হাত দিই নি কতদিন 

কাঞ্চনজঙ্ঘার চুড়োয়।

 

এই যে ভুলে থাকা

অগোছালো পৃথিবীর ঘরদোর

কোন প্রাকৃতভাষা সঞ্চিত আছে তার

জিহ্বা ললাট ওষ্ঠদ্বয়ের আকর্ষণে?

 

হয়তো আছে, লোকালয় থেকে দূরে

আবার এক কৃষিজমির ভ্রূণের অন্তরে।

তবে তার আগে সমস্ত নিয়ম ভেঙে 

এবার আমি ছুটে যাবো

 

তোমার ঘরময় এক রাজদ্রোহী হয়ে।

 

 


 


কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন